অপরাধনরসিংদীর খবররায়পুরা

ইতালি যাওয়ার পথে সাগরে নৌকা ডুবির ঘটনায় রায়পুরার দালাল তারেক গ্রেপ্তার

মানব পাচারকারী দালাল তারেক

বাণী রিপোর্ট : ইতালি যাওয়ার পথে ভূমধ্যসাগরে স্পিডবোট ডুবে নিখোঁজ হওয়ার ঘটনায় তারেক মোল্লা নামে মানব পাচারকারী দালালকে গ্রেপ্তার করেছে নরসিংদী জেলা গোয়েন্দা পুলিশ। গতকাল রবিবার (২০মার্চ) তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় নরসিংদী জেলা গোয়েন্দা পুলিশ তাকে বাগেরহাট থেকে গ্রেফতার করে। মানব পাচার মামলায় এ পর্যন্ত তিন দালালকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

পারফিউম ফ্যাক্টরি

গ্রেপ্তারকৃত দালাল তারেক মোল্লা (৩২) নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার আমীরগঞ্জ ইউনিয়নের হাসনাবাদ গ্রামের বাচ্চু মোল্লার ছেলে। রায়পুরা থেকে ইটালী পাঠানোর মূল দালাল তারেক।

জানা যায়, চলতি বছরের ২৭ জানুয়ারি দালালদের খপ্পরে পড়ে লিবিয়া থেকে স্পিডবোটে ভূ—মধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে ইতালি যাচ্ছিলেন অভিবাসন প্রত্যাশী ৩৫ জন বাংলাদেশি। ইতালি পৌঁছার ঘণ্টাখানেক আগে মাল্টা সীমানার জলরাশিতে অতিরিক্ত যাত্রীবোঝাই স্পিডবোটটি উল্টে গেলে সব যাত্রী ডুবে যান। প্রচণ্ড ঠাণ্ডায় ১১ ঘণ্টা ভেসে থাকার পর কোস্টগার্ডের সদস্যরা জীবিত সাত জনকে উদ্ধার করেন। তবে তীরে পৌঁছার আগেই ঠাণ্ডায় জমে একজনের মৃত্যু হয়। ভূমধ্যসাগরে এখনও নিখোঁজ আছেন ২৮ জন, তাদের মধ্যে ১৫ যুবকই নরসিংদীর। বেচেঁ ফিরে আসা রায়পুরার এক যুবক পুলিশের নিকট মানব পাচাঁরের ঘটনা বর্ণনা করে। স্বজনদের অভিযোগ ছিলো, লিবিয়ায় মানবপাচার চক্রের মূলহোতা মনির শিল ও বাংলাদেশে তার সহযোগী প্রধান স্থানীয় এজেন্ট তারেকের কারণেই ১৫ যুবকের এই করুণ পরিণতি হয়েছে।

হাতি মার্কা সাবান হাতি মার্কা সাবান

এ ঘটনায় নিখোঁজ আশিষ এর বাবা অনিল সূত্রধর রায়পুরা থানায় তারেক মোল্লা, মামুন মোল্লা ও সুবল চন্দ্র শীলকে আসামি করে অজ্ঞাত ৫—৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। পরে এই মানব পাচারকারী চক্রের সদস্য মামুন মোল্লা ও সুবল চন্দ্র শীলকে গত ৮ মার্চ গ্রেপ্তার করে নরসিংদী জেলা গোয়েন্দা পুলিশ। তারা জেল হাজতে রয়েছে।

Back to top button