নরসিংদীর খবর

নরসিংদীতে স্বর্ণের দোকানে ডাকাতির প্রস্ততিকালে অস্ত্রসহ ৯ ডাকাত গ্রেপ্তার

The Daily Narsingdir Bani

পারফিউম ফ্যাক্টরি The Daily Narsingdir Bani

বাণী রিপোর্ট : নরসিংদী শহরের স্বর্ণের দোকানে ডাকাতির প্রস্ততিকালে আগ্নেয়াস্ত্র ও ধারালো অস্ত্রসহ ৯ ডাকাতকে গ্রেফতার করেছে নরসিংদী ডিবি পুলিশ। উদ্ধার করা হয়েছে ডাকাতির কাজে ব্যবহৃত প্রাইভেট কার, নগদ টাকা, গুলিভর্তি বিদেশী পিস্তল ও ধারালো অস্ত্র।

The Daily Narsingdir Bani
ধৃত ডাকাতরা ঢাকা শহরের বিভিন্ন স্থানে, নারায়নগঞ্জ জেলার আড়াইহাজার থানার গোপালদী বাজার এবং ঢাকা জেলার আশুলিয়া থানার নয়ারহাট বাজারের স্বর্ণের দোকানে ১৪/১৫টি ডাকাতির সাথে জড়িত।

হাতি মার্কা সাবান হাতি মার্কা সাবান

শনিবার দুপুরে নরসিংদীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) ইনামুল হক সাগর এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানান। গ্রেপ্তারকৃতরা হলো, শরিযতপুর জেলার জাজিরা থানার কুন্ডেরচর এলাকার মোহাম্মদ দেওয়ানের ছেলে আনোয়ার হোসেন দেওয়ান (৪০), একই থানার দাইমুদ্দিন খলিফার কান্দি এলাকার মৃদ সিরাজ খলিফার ছেলে দেলোয়ার হোসেন খলিফা (৩৬), মাদারীপুর জেলার সদর থানার বলাইচর এলাকার মোতালেব খাঁ এর ছেলে কামাল খাঁ (৩৯), একই এলাকার মৃত মান্নান হাওলাদারের ছেলে খবির হাওলাদার (৪০), কালকিনী থানার নতুনচর দৌলতখান এলাকার নূরুল ইসলাম হাওলাদারের ছেলে খালেক হাওলাদার (৩৭), বরিশাল জেলার বানানীপাড়া থানার ব্রাহ্মণকাঠী এলাকার মৃত হারুন গাজীর ছেলে আল মিরাজ (৩৮), টাঙ্গাইল জেলার মির্জাপুর থানার বন্দকাউলজানি এলাকার মৃত আবদুল মালেকের ছেলে আব্দুর রহিম মিয়া (৩১, নারায়নগঞ্জ জেলার আড়াইহাজার থানার লক্ষীপুর এলাকার মৃত আব্দুর করিমের ছেলে কবির হোসেন (৩৮) ও একই থানার ঝাইকান্দি এলাকার সামসু মিয়ার ছেলে রহিম মিয়া (৩৯)।

পুলিশ জানায়, শুক্রবার মধ্যরাতে জেলার বিভিন্ন স্থানে গোয়েন্দা পুলিশ অভিযান কালে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারে দত্তপাড়া পুরাতন লঞ্জঘাটের বেড়িবাধঁ এলাকায় একদল ডাকাত, ডাকাতি করার উদ্দেশ্যে ০১ টি সী-বোড ও ০১ টি প্রাইভেটকারসহ সমবেত হয়ে অবস্থান করছে।

পরে ঘটনাস্থলে গোয়েন্দা পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পুলিশকে লক্ষ্য করে ডাকাতরা ফাঁকা গুলি বর্ষণ করে। গোয়েন্দা পুলিশ সদস্যরাও ৪ রাউন্ড রাবার বুলেট ছুড়ে। ডাকাতদল পালানোর চেষ্টাকালে ০৯ জন ডাকাতকে গ্রেপ্তার করা হয়। বাকী ১৪ থেকে ১৫ জন ডাকাত সী-বোর্ড নিয়ে গুলি করতে করতে পালিয়ে যায়।

গোয়েন্দা পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তারকৃতরা জানায়, পলাতক ডাকাতসহ তারা পরস্পর যোগসাজসে সী-বোর্ড , প্রাইভেটকার, বিদেশী পিস্তল, গুলি ও দেশীয় অস্ত্র-সস্ত্র নিয়ে সমবেত হয়ে নরসিংদীতে স্বর্ণের দোকানে ডাকাতি করার জন্য শলা পরামর্শ করছিল। তারা পেশাদার আন্ত:জেলা ডাকাত দলের সক্রিয় সদস্য।

ডাকাতদল গত ৩১ আগস্ট মঙ্গলবার দিবাগত রাতে নারায়নগঞ্জ জেলার আড়াইহাজার থানার গোপালদী বাজারে স্বর্ণের দোকানে ডাকাতি করে । গত ০৫ সেপ্টেম্বর রবিবার দিবাগত রাতে ঢাকা জেলার আশুলিয়া থানার নয়ারহাট বাজারে স্বর্ণের দোকানে ডাকাতি করে। ডাকাতির ঘটনায় লুন্ঠিত স্বর্ণ ও রূপা তাদের সহযোগী ডাকাত আব্দুর রহিম মিয়া এর মাধ্যমে বিক্রয় করে টাকা নিয়ে সব ডাকাতকে ভাগ-বাটোয়ারা করে দেয়। তারা ডাকাতির স্বর্ণ ও রুপা ঢাকার তাঁতী বাজারের নিউ খাজা স্বর্ণের দোকানে বিক্রয় করে।

তাদের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী ঢাকা জেলার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার কদমতলী এলাকার স্বর্ণ সুন্দরী শিল্পালয়ের পিছনের কক্ষে আঃ রহিম এর থাকার রুমে থেকে একটি সাদা প্লাষ্টিকের ব্যাগ হতে নগদ ২ লক্ষ ৪৫ হাজার টাকা উদ্ধার করে পুলিশ।

নরসিংদীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) ইনামুল হক সাগর বলেন, গ্রেপ্তারকৃতরা পেশাদার ডাকাতদলের সক্রিয় সদস্য। তাদের বিরুদ্ধে ঢাকা সহ দেশের বিভিন্ন জেলায় একাধিক মামলা রয়েছে। আর এ ঘটনায় নরসিংদী মডেল থানায় ডাকাতির প্রস্তুতি ও অস্ত্র আইনে পৃথক দুটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

Back to top button