নরসিংদীর খবর

নরসিংদীতে সুইডেন প্রবাসীর অর্থ আত্মসাতের মামলায় প্রতারক সানিয়েল আরফিন গ্রেপ্তার

The Daily Narsingdir Bani

পারফিউম ফ্যাক্টরি The Daily Narsingdir Bani

বাণী রিপোর্ট : নরসিংদীতে সুইডেন প্রবাসীর অর্থ আত্মসাতের মামলায় এস এম সানিয়েল আরফিন নামে এক প্রতারক গ্রেপ্তার হয়েছে।

The Daily Narsingdir Bani

গত দুই সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার সুইডেন প্রবাসী আতাউর রহমান এর অর্থ আত্মসাৎ মামলার ২ নং আসমী এস এম সানিয়েল আরফিন কে গ্রেপ্তার করে নরসিংদী মডেল থানা পুলিশ । পরে তাকে আদালতে প্রেরণ করলে বিজ্ঞ আদালত জামিন না মন্জুর করে তাকে জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

হাতি মার্কা সাবান হাতি মার্কা সাবান

সুইডেন প্রবাসী সুইডেন আওয়ামী লীগ সভাপতি, নরসিংদী জেলা আওয়ামী লীগ সদস্য, সুইডেন বাংলা টেক্সটাইল মিলস লিমিটেড এর চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আতাউর রহমান। তিমি গত ১৯ আগস্ট “২১তারিখে অর্থ আত্মসাৎ এর অভিযোগ এনে সাত জন কে আসামী করে সদর মডেল থানায় এজাহার দাখিল করেন। যার মামলা নং ৩২, তাং ১৯/০৮/২১ইং ধারা ৪০৬/৪২০/৫০৬/১০৯ পেনাল কোড।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, পূর্ব পরিচয়ের সূত্র ধরে বিশ্বাসের সুযোগ নিয়ে নরসিংদী শহরের চৌয়ালা মহল্লার মৃত আমজাদ হোসেন ভূঁইয়া এর স্ত্রী মোসাম্মৎ সুলতানা খাতুন ভূইয়া, পুত্র এস এম সানিয়েল আরফিন, মাহমুদুল আরফিন, কন্যা মাহমুদা তাইরান। আমজাদ হোসেন এর দুই ছেলের বউ, মেয়ের জামাতা যোগসাজসে নিজেদের কে ম্যানচেষ্টার কম্পজিট টেক্সটাইল মিলস লিমিটেডের মালিক পরিচালক বলে পরিচয় দিয়ে আসছে।

তারা তাদের প্রতিষ্ঠানে অর্থ বিনিয়োগ করার জন্য সুইডেন প্রবাসী আতাউর রহমান কে আহ্বান জানান এবং মনের বিশ্বাস জন্মাইবার জন্য ২৫% ও প্রবাসী বড় ভাই মতিউর রহমান ৫% মালিকানা শেয়ার দিবে মর্মে প্রতিশ্রুতি দিতে থাকেন।

প্রবাসী সুইডেন আতাউর প্রতারক চক্রের প্রতিশ্রুতি ও কথায় বিশ্বাস স্থাপন করিয়া ৪/৮/১৯ইং এস এম সানিয়েল আরফিনকে নগদ ষাট লক্ষ টাকা প্রদান করেন । পরবর্তীতে তিনটি চেকের মাধ্যমে এক কোটি তিরাশি লক্ষ পঞ্চাশ হাজার টাকা গ্রহণ করে আসামীগণ।

এজাহারনামীয় আসামীগণ যোগসাজশে ২০/০৮/২০ ইং তারিখে একটি লিখিত দলিল সম্পাদন করেন। আসামীদের মুখোশ খুলতে থাকে, দীর্ঘ সময়ক্ষেপণ ও লিখিত চুক্তি মতে প্রতিষ্ঠানটি হস্তান্তরে কোনরূপ পদক্ষেপ না নেওয়ায় অর্থ আত্মসাতের পায়তারা প্রকাশ পেয়ে যায়। হতভম্ভ ও নিরুপায় হইয়া প্রবাসী আতাউর ১২/১১/২০ ইং তারিখে সুলতানা খাতুনের ছেলে এস এম সানিয়েল আরফিন, মাহমুদুল আরফিন ও মেয়ে মাহমুদা তাইরান কে লিগেল নোটিশ প্রদান করেন। এদিকে অর্থ ফেরত ও বর্ণিত মিলটির মালিকানা হস্তান্তর না করার আইনত লিখিত চুক্তির প্রতিপালনে বাধ্য থাকা সত্ত্বেও তারা নোটিশের জবাব দেয়নি।

আসামীগণ বিনিয়োগকৃত অর্থ আত্মসাত ও অসৎ উদ্দেশ্য নিয়া বর্ণিত মিলটি নরসিংদী সদর সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের (রেজিঃ দলিল নং ১৩৯৭৯/২০) মূলে মিলটি ৩য় পক্ষের নিকট হস্তান্তর করিয়া দেয়। বারংবার তাগদা দেওয়া সত্ত্বেও টাকা ফেরত প্রদানে অনীহা বা অস্বীকার করে। প্রবাস জীবনে কষ্টার্জিত অর্থ ফেরত চাইলে একযোগে প্রতারক চক্র পরিবারটি টাকা ফেরত প্রদানে অস্বীকার করে, হুমকি ধমকির পাশাপাশি চরম ক্ষতিসাধন করিবে বলে হুমকি দিতে থাকে।

সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে সুইডেন প্রবাসী আতাউর রহমান হৃদয় ভারাক্রান্ত মন নিয়ে জানান, সুষ্ঠু বিচার এবং ঠকবাজ বা প্রতারকদের এহেন কর্মকাণ্ডের কারণে প্রবাসীরা নিজ দেশে বিনিয়োগে আগ্রহ হারাচ্ছেন । এতে দেশের উন্নয়নে ব্যাঘাত ঘটছে, বহু রক্তের বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীনতা ক্ষুন্ন হচ্ছে। বর্তমানে বিচারব্যবস্থা স্বাধীন, সুষ্ঠ বিচারের মাধ্যমে অপরাধীরা দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি পেলেই আত্মসাৎ করা বা পরঅর্থলোভ থেকে বিরত থাকবে এবং বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ে উঠবে বলে আমার বিশ্বাস। আমার সরলতা ও বিশ্বাসের সুযোগ নিয়ে আত্মসাৎ করা টাকা আদালতের মাধ্যমে ফেরত পাবো বা উদ্ধার হবে এটাই আমার প্রত্যাশা।

Back to top button