জাতীয়

নরসিংদীর কৃতি সন্তান সাবেক গভর্নর ও ভাষা সৈনিক মো. খোরশেদ আলম মারা গেছেন

The Daily Narsingdir Bani

বাণী রিপোর্টঃ নরসিংদীর কৃতি সন্তান বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর (২০ ডিসেম্বর ১৯৯২ – ২১ নভেম্বর ১৯৯৬) ও ভাষা সৈনিক মো. খোরশেদ আলম আজ বুধবার সকাল ১০টায় রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে বার্ধক্যজনিত রোগে মারা গেছেন (ইন্না নিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৬ বছর।

পারফিউম ফ্যাক্টরি The Daily Narsingdir Bani

১৯৩৫ সালের ১৫ জানুয়ারি নরসিংদী জেলার রামনগরে জন্মগ্রহণ করেন খোরশেদ আলম। পেশাগত জীবনে তিনি মেধার স্বাক্ষর রেখেছেন। তিনিই প্রথম বাংলাদেশ ব্যাংকে মুদ্রানীতি কমিটি গঠন ও পরিচালনা করেন। আর্থিক খাত কর্মসূচির আওতায় তিনি আইএমএফ, বিশ্বব্যাংক ও এডিবিসহ বিভিন্ন উন্নয়ন সংস্থার সঙ্গে সমন্বয়ের মাধ্যমে কেন্দ্রীয় ব্যাংকিং কর্মকাণ্ড পরিচালনা করেছেন।

The Daily Narsingdir Bani

তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে, হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে লোকপ্রশাসন ও টাফটস বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে মাস্টার্স ডিগ্রি অর্জন করেছেন। তিনি একজন ভাষাসৈনিক। ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনে তিনি সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেছেন। প্রায় দুই হাজার কিলোমিটার দূরত্বে অবস্থিত দুটি ভূখণ্ডের দুটি ভিন্ন ভাষার জাতিসত্তাকে মিলিয়ে পাকিস্তান রাষ্ট্রের জন্ম থেকেই মাতৃভাষাকে কেন্দ্র করে সূচনা হয়েছিল আন্দোলনের। আর এই ভাষা আন্দোলনকেই বাংলাদেশ রাষ্ট্র সৃষ্টির পথে প্রথম পদক্ষেপ হিসেবে মনে করা হয়।

হাতি মার্কা সাবান হাতি মার্কা সাবান

খোরশেদ আলম ১৯৭১ সালে যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন ইন নিউ ইংল্যান্ড প্রতিষ্ঠা করেন এবং সেখান থেকে স্বাধীনতাযুদ্ধের পক্ষে কাজ করেন।
১৯৫৭ সালে পাকিস্তান সিভিল সার্ভিসে যোগদান করে খোরশেদ আলম পেশাগত জীবন শুরু করেন। তিনি চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহ ও পাবনার জেলা প্রশাসক ছিলেন। এ ছাড়া তথ্য, স্থানীয় সরকার, যোগাযোগ, শিল্প, বাণিজ্য ও অর্থসচিব এবং তুরস্কের রাষ্ট্রদূতের দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। বাংলাদেশ ব্যাংকে গভর্নর হিসেবে যোগদানের আগে তিনি মুখ্য অর্থসচিবের দায়িত্ব পালন করেছেন।

খোরশেদ আলমের মৃত্যুতে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির গভীর শোক প্রকাশ করে বলেন, স্বদেশি চেতনায় সমৃদ্ধ, সততা, দক্ষতা ও অনন্য হৃদয়ের অধিকারী খোরশেদ আলম আর্থিক খাতের কর্ণধার হিসেবে এ দেশে অনন্য ভূমিকা পালন করেছেন।

বাংলাদেশ ব্যাংকের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।
তিনি স্ত্রী, চার পুত্র ও অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। তাঁর মৃত্যুতে বাংলাদেশ ব্যাংকসহ সমগ্র ব্যাংক পরিবার গভীর শোক প্রকাশ করছে। তারা মরহুমের শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা এবং তাঁর বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেছে।

Back to top button