নরসিংদীর খবর

রায়পুরার সায়দাবাদে বসত বাড়ীতে ককটেল বিস্ফোরণ, ভাংচুর, রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা

The Daily Narsingdir Bani

পারফিউম ফ্যাক্টরি The Daily Narsingdir Bani

মাহবুবুল আলম লিটন : নরসিংদীর রায়পুরায় সিএনজি অটোরিকশা স্ট্যান্ডের কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে ১টি বাড়ি ককটেল বিস্ফোরন, ভাংচুর করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

হাতি মার্কা সাবান হাতি মার্কা সাবান

সোমবার (৫জুলাই) সন্ধ্যায় উপজেলার শ্রীনগর ইউনিয়নের সায়দাবাদ গ্রামের শহীদ মিয়ার বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

ভুক্তভোগীরা জানান, সায়দাবাদ ফেরীঘাটে সিএনজি স্ট্যান্ডের কমিটি অনুমোদন দেওয়াকে কেন্দ্র করে দীর্ঘদিন ধরে ফিরোজ মিয়া ও তার ছোট ভাই শাহরাজের সমর্থক এবং হানিফ মাস্টার গ্রুপের মজনু’র সমর্থকদের মাঝে বিরোধ চলে আসছিলো। এরই জের ধরে বেশকিছুদিন আগে ফিরোজ মিয়া ও হানিফ মাস্টার সমর্থকদের মাঝে ঝগড়া হয়। এতে ফিরোজ সমর্থিত একজন আহত হলে ফিরোজ মিয়া প্রতিপক্ষের কয়েকজনকে আসামী করে থানায় মামলা দায়ের করে।

এরপর থেকেই ফিরোজ, শাহরাজের লোকজন প্রতিনিয়ত উষ্কানিমূলক কথাবার্তা ও হুমকি দিয়ে আসছে হানিফ মাস্টারের লোকজনদের।

পরে ফিরোজ গ্রুপের নজরুল, শাহরাজ, নূর আহাম্মদ সহ ২০-২৫ জন লোক হানিফ মাস্টারের সমর্থক শহীদ মিয়ার বাড়িতে ককটেল বিস্ফোরণ, ভাংচুর চালায় বলে অভিযোগ করে ভুক্তভোগী শহীদ মিয়া।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত শাহরাজের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি সব ঘটনা মিথ্যা ও বানোয়াট বলে দাবি করেন। তাদের বিরোদ্ধে দায়ের করা আগের মামলাটির
কাউন্টার আরেকটি মামলা করতে এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে জানান ।

স্থানীয় সূত্রে জানাযায়- এ বিরোধ নিরসনের জন্য উপজেলা প্রশাসন ও রায়পুরা থানার ওসি
মোঃ গোলাম মস্তোফা একাধিকবার আলোচনা করলেও তা ফলপ্রসূ হয়নি।

উভয় গ্রুপের লোকজন রণসাজে সজ্জিত। যে কোন সময় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হতে পারে। সংঘর্ষের আশঙ্কায় এলাকার সাধারণ মানুষ আতঙ্কিত।

এ ব্যাপারে রায়পুরা থানার ওসি তদন্ত গোবিন্দ সরকার বলেন, ঘটনাটি শুনেছি কিন্তু এখনো পর্যন্ত লিখিত কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি। এলাকায় পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Back to top button