অপরাধনরসিংদীর খবর
Trending

নরসিংদীতে ব্রিটিশ নাগরিকের বাড়ি দখলের চেষ্টায় লিপ্ত ভূমিদস্যুচক্র, প্রাণনাশের হুমকী,প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা

The Daily Narsingdir Bani

পারফিউম ফ্যাক্টরি The Daily Narsingdir Bani

বাণী রিপোর্ট: প্রবাসীদের কষ্টার্জিত টাকায় দেশের অর্থনীতি সচল থাকলেও তাদের স্বস্তিতে থাকার অবকাশ নেই। নরসিংদী শহরের প্রাণকেন্দ্র পশ্চিম কান্দাপাড়া (রাঙ্গামাটি) এলাকায় লন্ডন প্রবাসীর বাড়ি জোরপূর্বক দখল করে নেয়ার চেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে স্থানীয় ভূমিদস্যুদের একটি চক্র। চক্রটি জালজালিয়াতির মাধ্যমে ভূয়া কিছু কাগজপত্র তৈরি করে রিনা রহমান নামক ব্রিটিশ প্রবাসীর কাছে মোটা অংকের টাকা দাবী করাসহ তার বাড়ী জোরপূর্বক দখল করে নেয়ার হুমকি দিয়েছে।

The Daily Narsingdir Bani

চক্রের মূল হোতা আত্মীয়স্বজনদের মাধ্যমে প্রবাসীনীকে প্রকাশ্যে অপহরণ, হত্যা ও গুম করার হুমকী দিয়েছে। চক্রান্তকারীদের নানা অপকর্মের বিরুদ্ধে নরসিংদী সদর মডেল থানায় সাধারণ ডায়েরী করেছেন ভুক্তভোগী ব্রিটিশ নাগরিক রিনা রহমান।

হাতি মার্কা সাবান হাতি মার্কা সাবান

রিনা রহমান জানান, অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হতে তিনি ও তার স্বামী সন্তানসহ ৩০ বছর পূর্বে লন্ডনের প্রবাসী হন। কয়েক বছর পর নাড়ীর টানে দেশে ফিরে আসেন।

দেশে ফিরে প্রবাসের কষ্টার্জিত টাকায় নরসিংদী শহরের পশ্চিম কান্দাপাড়া (রাঙ্গামাটি) এলাকায় ২০১১ সালে স্থানীয় দুলাল আহমেদ এর নিকট থেকে প্রায় ৪০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে সাড়ে ৩ শতাংশ জায়গা ক্রয় করেন রিনা রহমান। জমি ক্রয়ের কিছুদিন পর কয়েকমাস দেশে থেকে আত্মীয়স্বজনদের সাথে দেখা সাক্ষাত করে জীবনের প্রয়োজনের তাগিদে তিনি আবার লন্ডনে চলে যান।

প্রবাসে চলে যাওয়ার পূর্বে রিনা জমির দখল বুঝে নিয়ে নিজ নামে নামজারি জমা ভাগ করেন। এদিকে জমি বিক্রেতা দুলাল আহমেদ রিনা রহমানের নিকট কিছুদিন বাড়িতে থাকার অনুমতি নিয়ে এ বাড়িতেই বসবাস করতে থাকেন।

প্রবাসে চলে যাওয়ার পর দুলাল আহমেদ জায়গার দলিল ঠিক নেই, কাগজপত্র ঠিক নেই এবং নানারকম ভয়ভীতি দেখিয়ে প্রবাসীকে হয়রানী করতে থাকে। ২০১৫ সালে প্রবাসী রিনা রহমান পুনরায় দেশে এসে আইনগত প্রক্রিয়ার মাধ্যমে অবৈধ দখলদার দুলাল আহমেদকে উচ্ছেদ করে বাড়ির জায়গা দখলে নেন। এবার তিনি চলে যাওয়ার পূর্বে ২৭/০৮/২০১৫ ইং তারিখে তার নিকটাত্মীয় ফয়সাল মাহমুদের নামে পাওয়ার অব এটর্নি দলিল সৃজন করে বাড়ী দেখাশোনার দায়িত্ব অর্পণ করেন। এরপর থেকে শুরু হয় দুলাল আহমেদের নানা ষড়যন্ত্র। দুলাল স্থানীয় একটি সন্ত্রাসী চক্র এবং নরসিংদী সদর সাব রেজিষ্ট্রি অফিসের জালিয়াত চক্রের সহযোগিতায় পাওয়ার অব এটর্নি দলিল সৃজন করার মাত্র ৫ দিনের মাথায় প্রবাসী রিনা রহমান ও ফয়সাল মাহমুদ এর স্বাক্ষর জাল করে ০২/৯/২০১৫ ইং তারিখে ফয়সাল মাহমুদের নামে করা পাওয়ার অব এটর্নি দলিলটি বাতিল করেন। বাতিলকৃত দলিল নং- ১৪২৯৫/১৫।

আবার একই তারিখে রিনা রহমানের স্বাক্ষর জাল করে ভূমি দস্যু চক্রের হোতা দুলাল আহমেদ তার নিজের নামে অপর একটি অফেরতযোগ্য পাওয়ার অব এটর্নি দলিল সৃজন করেন। যার দলিল নং ১৪২৯৬/১৫, তাং ০২/০৯/২০১৫ ইং। এসব জাল জালিয়াতির মাধ্যমে দলিল সৃজনে সহায়তা করেন সাবরেজিষ্ট্রি অফিসের অসাধু চক্রের হোতা দলিল লেখক তাইজ উদ্দিন, সনদ নং ৪২০।

জাল জালিয়াতির মাধ্যমে পাওয়ার দলিল সৃজন করে দুলাল গংরা প্রবাসী রিনা রহমানের জায়গা অন্যত্র বিক্রি করে দিবে বলে হুমকী দেয়। শুধু তাই নয় দুলাল গংরা প্রবাসীর জায়গা জোরপূর্বক দখলে নেয়ার পায়তারা করতে থাকে। বিষয়টি জানতে পেরে রিনা রহমান সম্প্রতি দেশে আসলে দুলাল গংরা পাওয়ার দলিল ঠিক করে দিবেন বলে প্রবাসীর নিকট ১২ লাখ টাকা দাবি করেন। দাবীকৃত টাকা না দিলে অথবা আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করলে প্রবাসীকে অপহরণ, গুম এবং হত্যার প্রকাশ্য হুমকী দেয়। প্রতিদিন প্রবাসীর আত্মীয়স্বজনের মাধ্যমে দুলাল গংরা তাকে হত্যার হুমকী দিয়ে যাচ্ছে।

জালজালিয়াতি দলিল সৃজনের বিষয়ে পাওয়ার অব এটর্নিপ্রাপ্ত ফয়সাল মাহমুদ জানান, আমার নামের পাওয়ার দলিলটি বাতিল করা হয়নি। অথচ দুলাল গংরা আমার স্বাক্ষর এবং আমার আত্মীয় রিনা রহমানের স্বাক্ষর জাল করে পাওয়ার দলিলটি বাতিল করে এবং একই দিন দুলালের নামে পাওয়ার দলিল সৃজন করে। এই ভূমিদস্যু চক্রটি প্রবাসী রিনা রহমানের বড়ধরনের ক্ষতি করতে পারে।

প্রবাসী রিনা রহমান বলেন, দুলাল প্রকাশ্যে আমার আত্মীয়স্বজনের মাধ্যমে আমাকে হত্যা, অপহরণ ও গুমের হুমকি দিয়েছে। আমি ব্রিটিশ নাগরিক হিসেবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি। দুলালের কার্যকলাপের বিষয়ে আমি ইতোমধ্যে নরসিংদী সদর মডেল থানায় সাধারণ ডায়রী করেছি। তারপরেও দুলাল গংরা আমাকে নানাভাবে হুমকী দেয়া অব্যাহত রেখেছে।

তিনি আরো বলেন, বিদেশের কষ্টার্জিত অর্থে নরসিংদী শহরে বাড়ী কিনেছি। ভূমিদস্যু চক্র যেভাবে আমার জায়গা দখলে নেয়ার চেষ্টা করছে এবং আমাকে মানুষিকভাবে নির্যাতন করছে এমন ঘটনা অব্যাহত থাকলে প্রবাসীরা দেশে জায়গা সম্পত্তি ক্রয় করবে না এবং দেশের প্রতি তাদের নেতিবাচক ধারণা জন্মাবে। প্রবাসীরা নাড়ীর টানে আর দেশে আসবেনা।

এদিকে জালিয়াত দলিল সৃজনকারী তাইজ উদ্দীন ও দুলাল আহমেদের সাথে এই ব্যাপারে ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও তাদের পাওয়া যায়নি।

Back to top button