নরসিংদীর খবর

মাধবদীতে ইয়াবা ও ফেন্সিডিল রেখে বাড়ির মালিককে ফাঁসাতে গিয়ে নিজেরা ফেঁসে গেলেন, আটক-২

এস এম বেলাল : ২শত পিছ ইয়াবা ও ২বোতল ফেন্সিডিল বাড়িতে রেখে বাড়ির মালিককে ফাঁসাতে গিয়ে ডিবি পুলিশের হাতে আটক হয়েছে দুই যুবক।নরসিংদী সদর উপজেলার মাধবদী পৌর এলাকার টাটাপাড়া গ্রামে পূর্ব শত্রুতার জেরধরে মাদকদ্রব্য দিয়ে ভালো লোককে ফাঁসানোর চেষ্টার সময় দুই জনকে আটক করে নরসিংদী ডিবি পুলিশ।জানাযায় গত ৮ এপ্রিল দুপুরে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের একটি টিম মাদকদ্রব্য উদ্ধারে মাধবদী বাসস্ট্যান্ড এলাকায় অভিযান পরিচালনা করছিল। এসময় দুইজন ব্যাক্তি এসে পুলিশকে জানায় টাটাপাড়া এলাকার হাজী জলিলের ৫তলা বাড়ির সিড়ির নিচে মাদক রয়েছে। সংবাদ পেয়ে পুলিশ সংবাদ দাতাদের সাথে নিয়ে মাদক উদ্ধারে যায়। সেখানে গিয়ে কাউকে না পেয়ে উক্ত সংবাদ দাতাদের জিজ্ঞেসাবাদ করলে তারা একেক সময় একেক ধরনের তথ্য প্রদান করে। তাদের কথাবার্তায় পুলিশের সন্দেহ হলে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করলে মাদকের রহস্য উদঘাটিত হয়। আটককৃতরা হলো টাটাপাড়া এলাকার মৃত ইসলাম মিয়ার ছেলে ইসমাইল হোসেন ওরফে আবুল (২১) ও আমদিয়া ইউনিয়নের পাকুরিয়া গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে শরীফ মিয়া (২২) ।তারা পুলিশকে জানায় টাটাপাড়া এলাকার কসাই নজরুল ইসলামের ছেলে মোহাম্মদ আলী (২৫) তাদেরকে টাকা দিয়েছে মাদকদ্রব্য রেখে উক্ত বাড়ির মালিক জলিল কে ফাঁসানোর জন্য। তার কথামত আটককৃত ব্যাক্তিরা এ অপকর্ম করে। আটককৃতদের দেখানো স্হান থেকে ২শত পিস ইয়াবা ও দুই বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করে পুলিশ।পরে তাদের তিন জনের বিরুদ্ধে মাধবদী থানায় বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা দায়ের করা হয়। প্রধান আসামি মোহাম্মদ আলী ঘটনার পর থেকে পলাতক রয়েছে।উল্লেখ্য আসামী মোহাম্মদ আলী ও তার ভাই সহ আরো কয়েক জনের বিরুদ্ধে জলিল হাজী ৫ জানুয়ারী’২১ মাধবদী থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেছিল । সেই মামলায় মোহাম্মদ আলী দির্ঘদিন জেলে খাটে। জেল থেকে জামিনে বের হয়ে মোহাম্মদ আলী প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য জলিল হাজীর বিরুদ্ধে এই মিথ্যা মাদক মামলা সাজায়। মোহাম্মদ আলীর পিতা ও চাচাদের বিরুদ্ধে আরো বহু অভিযোগ রয়েছে।

পারফিউম ফ্যাক্টরি

হাতি মার্কা সাবান হাতি মার্কা সাবান

Back to top button