নরসিংদীর খবরবেলাবো

নরসিংদীর মেয়ে তনিমা বিশ্বের সেরা ১০ জন তরুণ বিজ্ঞানীদের একজন

The Daily Narsingdir Bani

পারফিউম ফ্যাক্টরি The Daily Narsingdir Bani

বাণী রিপোর্টঃ নরসিংদীর বেলাব উপজেলার নারায়ণপুর ইউনিয়নের হোসেন নগর গ্রামের ও ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের সাবেক ভারপ্রাপ্ত মেয়র প্রবাসী এম এ কাইয়ুম সাহেবের কন্যা তনিমা তাসনিম অনন্যা (২৯) কৃষ্ণগহ্বর নিয়ে গবেষণার জন্য সায়েন্স নিউজ নামের একটি গণমাধ্যমের বিচারে বাছাই করা বিশ্বের সেরা ১০ জন তরুণ বিজ্ঞানীর মাঝে একজন হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে।

হাতি মার্কা সাবান হাতি মার্কা সাবান

বর্তমানে তিনি ডার্টমাউথ কলেজের একটি পোস্টডক্টোরালের গবেষণা সহযোগী।এর আগে তিনি নাসা ও সার্নে ইন্টার্নশিপ করেছেন। তনিমা ২০১৯ সালে ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগে পিএইচডি সম্পন্ন করেন।

গত ৩০ সেপ্টেম্বর সায়েন্স নিউজ এই তালিকা প্রকাশ করে। এ নিয়ে সায়েন্স নিউজ টানা ছয় বছর ধরে উদীয়মান ও ক্যারিয়ারের মাঝামাঝি থাকা সম্ভাবনাময় তরুণ বিজ্ঞানীদের তালিকা প্রকাশ করে আসছে।চলতি বছর এই তালিকায় স্থান পাওয়া প্রত্যেকেই ৪০ বা তার চেয়েও কম বয়সী। এবং তারা প্রত্যেকেই নোবেল বিজীয়দের দ্বারা মনোনীত হয়েছেন।

সায়েন্স নিউজের ওয়েবসাইটের প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, এখন পর্যন্ত তিনি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সাহায্যে সবচেয়ে ভারি কৃষ্ণগহব্বর আঁকতে সক্ষম হয়েছেন এবং দেখিয়েছেন, মহাবিশ্বে কোথায় কীভাবে কৃষ্ণগহব্বর বেড়ে উঠছে এবং কীভাবে তারা তাদের পরিবেশকে প্রভাবিত করে।
তনিমার উদ্ধৃতি দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে,পাঁচ বছর বয়সে ঢাকায় থাকার সময় থেকেই তনিমা তাসনিমের মধ্যে মহাকাশের স্বপ্ন বুনে দেন তার মা। তিনি মেয়েকে তখন শোনাতেন মঙ্গলে অভিযানে যাওয়া পাথফাইন্ডার মহাকাশযানের গল্প। সেই থেকেই বিজ্ঞানের প্রতি আগ্রহ বাড়তে থাকে তনিমার। ওই সময় থেকেই মহাকাশবিজ্ঞান নিয়ে পড়াশোনা করার স্বপ্ন দেখতেন।
তনিমা বলেন, যখন আমি বুঝতে পারি যে মহাবিশ্বে আরও অন্যান্য জগত রয়েছে, আমি তখনই জ্যোতির্বিজ্ঞান অধ্যয়ন করতে চেয়েছিলাম।বাংলাদেশে জ্যোতির্বিজ্ঞানে পড়ার সুযোগ না থাকায় সেই স্বপ্ন পূরণের লক্ষ্যে পেনসিলভেনিয়ার ব্রায়ান মাওর কলেজে পড়তে স্নাতক পর্যায়েই যুক্তরাষ্ট্রে চলে আসি।তারই সুবাধে আজ আমি এসএনটেন : ‘সায়েন্টিস্ট টু ওয়াচ’ প্রতিবেদনের সেরা বিজ্ঞানীদের তালিকায় শুরুতেই স্থান পেয়েছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button