পারফিউম ফ্যাক্টরী এলকোহল মুক্ত সুগন্ধির দুনিয়ায় পারফিউম ফ্যাক্টরি আপনার জন্য একটি " ব্লাইন্ড বাই" প্লাটফর্ম "পারফিউম ফ্যাক্টরি"।
জাতীয়

ঢাবি শিক্ষার্থীদের স্মার্টফোন কিনার জন্য ২০ হাজার টাকা করে দেয়ার খবর ভুয়া

The Daily Narsingdir Bani

বাণী ডেস্কঃ ইতোমধ্যে কয়েকটি অনলাইন সংবাদ পোর্টাল এবং ফেসবুকে খবর ছড়িয়ে পড়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের ২০ হাজার টাকা করে দেয়া হবে কিন্তু খবরের সত্যতা নাকচ করে দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। তারা বলছেন এ ধরনের খবর ভুয়া। যদিও বাজেট বইয়ের মুখবন্ধে কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক কামাল উদ্দীন অনলাইনে ক্লাসে যোগ দেওয়ার জন্য স্মার্টফোন কিনতে ২০ হাজার শিক্ষার্থীকে ২০ হাজার টাকা করে অনুদান দেওয়ার একটি প্রস্তাব করেছিলেন।

কিন্তু তা নিয়ে সিনেট অধিবেশনে কোন প্রস্তাব কিংবা কোন ধরনের আলোচনাই হয়নি।

তবে বাজেট বইয়ের মুখবন্ধে কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক কামাল উদ্দীন লিখেছেন, “অনলাইন ক্লাস শুরুর প্রস্তুতি হিসেবে যদি ২০ হাজার শিক্ষার্থীকে ২০ হাজার টাকা করে স্মার্টফোন কেনার জন্য অনুদান দেওয়া হয়, তবে ৪০ কোটি টাকার প্রয়োজন। বর্তমানে কর্মরত শিক্ষক ও কর্মকর্তাদের মধ্যে যারা ৫ম গ্রেড বা তদুর্ধ্ব গ্রেডে বেতন পাচ্ছেন তাদের মূল বেতন এক বৎসরের জন্য ৩% বা ৫% কমিয়ে দিলে প্রায় ১০ কোটি টাকা সাশ্রয় করা সম্ভব। বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব তহলি হতে আরও ১০ কোটি টাকা অনুদান দেওয়া সম্ভব। বাকি ২০ কোটি টাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়ন তহবিল থেকে দেওয়া যেতে পারে। অথবা বিকল্প ব্যবস্থা হিসেবে সরকারের নিকট হতে ৫০ কোটি টাকা বিশেষ বরাদ্দের আবেদন করা যেতে পারে।”

শিক্ষার্থীদের সহায়তার প্রসঙ্গে জানতে চাইলে অধ্যাপক সামাদ বলেন, “এ ধরনের কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। এই প্রস্তাবটা কোষাধ্যক্ষ বাজেট বইয়ের ড্রাফটে লিখেছিলেন। এটা তিনি উদাহরণ হিসেবে লিখেছিলেন।এটা প্রস্তাব আকারে সিনেটে পেশ হয়নি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনার লক্ষ্যে কেন্দ্রীয়ভাবে নীতিমালা প্রণয়ন, তথ্যপ্রযুক্তিগত অবকাঠামো নির্মাণ, আর্থিক বিষয়সহ আনুসঙ্গিক বিষয়ে একটি প্রতিবেদন তৈরির জন্য সভা থেকে উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক এএসএম মাকসুদ কামালকে প্রধান করে একটি কমিটি গঠন করা হয়৷

অধ্যাপক এএসএম মাকসুদ কামাল বলেন, “যেসব শিক্ষার্থী আর্থিক সমস্যার জন্য ক্লাসে অংশগ্রহণ করতে পারছে না, তাদের যুক্ত করতে আমরা পদক্ষেপ নিচ্ছি। আগামী সপ্তাহে হয়ত একটা সিদ্ধান্তে পৌঁছানো যাবে।

এই কমিটি ইতোমধ্যে বিভিন্ন অনুষদ, বিভাগ ও ইনস্টিটিউটের মাধ্যমে জরিপ চালিয়ে অনলাইন ক্লাসের প্রতিবন্ধকতা ও সম্ভাব্যতা যাচাই করছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button