জাতীয়নরসিংদী সদর

নরসিংদীতে বিদ্যালয় নির্মাণকাজে অনিয়ম, উপজেলা প্রকৌশলী বরখাস্ত

শেয়ার করুনঃ

The Daily Narsingdir Baniবাণী রিপোর্ট : দেশের উন্নয়নে গৃহীত প্রকল্পে নিম্নমানের কাজে জড়িত থাকলে এখন থেকে আর বদলি নয়, বরং বরখাস্ত অথবা আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম। গত রোববার মন্ত্রণালয়ে নিজ কক্ষে স্থানীয় সরকার বিভাগ এবং এর আওতাধীন বিভিন্ন বিভাগ ও দপ্তরের বাস্তবায়নাধীন ২০১৯-২০ অর্থবছরের সংশোধিত বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে (আরএডিপি) অন্তর্ভুক্ত প্রকল্পগুলোর বাস্তবায়ন অগ্রগতির ওপর বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি পর্যালোচনা নিয়ে অনলাইন সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম এর কঠোর হুশিয়ারী দ্রুত বাস্তবায়িত হয়েছে। নরসিংদীতে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কাজে দুর্ণীতি ও অনিয়মের অভিযোগে প্রকৌশলীকে বরখাস্ত করা হয়েছে।

নরসিংদী সদর উপজেলাধীন বালুসাইর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষ নির্মাণ প্রকল্পসহ চলমান উন্নয়ন প্রকল্পসমূহের যথাযথ তদারকি না করে ঠিকাদারের সাথে যোগসাজশে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে নরসিংদী সদর উপজেলার সাবেক উপজেলা প্রকৌশলী বিপ্লব পালকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়।

মঙ্গলবার (১৪ জুলাই) রাষ্ট্রপতির পক্ষে স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। সেই সাথে প্রকল্পসমূহের কাজ যথাযথ বাস্তবায়িত না হওয়ায় সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ এবং সরকারি অর্থের ব্যবহার নিশ্চিত না হওয়ায় সরকারি কাজে অবহেলা ও দায়িত্বহীনতার কারণে নরসিংদী এলজিইড ‘র নির্বাহী প্রকৌশলী এর কাছে ব্যাখ্যা চাওয়া হয়েছে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন নরসিংদী সদর উপজেলার বালুসাইর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষ নির্মাণ প্রকল্পে নিম্নমানের কাজ এবং আঁকাবাঁকা গ্রেড বিম ও ড্রপ ওয়াল নির্মাণের ফলে যেকোনো সময় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। এ জন্য বিদ্যালয়টির শ্রেণিকক্ষ সম্পূর্ণ ভেঙে নতুন ভাবে তৈরি করতে হবে। এছাড়া প্রকল্পটির প্রাক্কলিত মূল্য ৮৭ লাখ ৭৭ হাজার ২৮৭ টাকা। এরমধ্যে ২৫ লাখ ২ হাজার ২৩২ টাকা ইতোমধ্যে ঠিকাদারকে বিল হিসেবে প্রদান করা হয়েছে, যেখানে কাজের অগ্রগতি ৩০ ভাগ দেখানো হয়েছে।

ঠিকাদারের সাথে পরস্পর যোগসাজশের মাধ্যমে উপজেলা প্রকৌশলী বিপ্লব পাল অর্থ আত্মসাৎ করেছেন যা প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত হয়েছে বলেও প্রজ্ঞাপনে বলা হয়। এছাড়া সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ এবং সরকারি কাজে অবহেলা ও দায়িত্বহীনতার অভিযোগও আনা হয় তার বিরুদ্ধে। তিনি নরসিংদী সদর উপজেলা প্রকৌশলী হিসেবে কর্মরত থাকাকালীন এই অনিয়মের সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন।

স্থানীয় একজন প্রভাবশালী ঠিকাদার সিডিউল বহির্ভূত কাজ করছিল। সম্প্রতি এলাকাবাসীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে ও মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে নরসিংদী সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ঘটনাস্থলে গিয়ে ঠিকাদারকে কাজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দেন। ফলে তাৎক্ষণিক নির্মাণকাজ বন্ধ হয়ে যায়। সিডিউল বহির্ভূত কাজ হওয়ায় তিনি কাজ বন্ধ রাখার নির্দেশ প্রদান করেন।

অভিযোগের প্রেক্ষিতে বিপ্লব পালের বিরুদ্ধে সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপীল) বিধিমালা, ২০১৮ এর বিধি ৩ (খ) ও (ঘ) এর অধীনে অভিযোগ আনা হয় এবং সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপীল) বিধিমালা, ২০১৮ এর ১২ বিধি অনুযায়ী তাকে সরকারি চাকরি হতে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button