জাতীয়

পোষাক কারখানায় এ পর্যন্ত ৬০ থেকে ৭০ হাজার শ্রমিক ছাটাঁই হয়েছে

শেয়ার করুনঃ

The Daily Narsingdir Bani

বাণী ডেস্ক :পোষাক কারখানায় এ পর্যন্ত ৬০ থেকে ৭০ হাজার শ্রমিক ছাটাই করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন শ্রমিক নেত্রী নাজমা আক্তার। তিনি বলেন, ছাটাই শুরু হয়েছে ঈদের পর ২৭ মে থেকেই।

বৃহস্পতিবার (৪ জুন) শ্রমিক নেত্রী নাজমা আক্তার জানান, টার্গেট করে, বেছে বেছে শ্রমিকদের ছাটাই করছে মালিকরা। যারা ট্রেড ইউনিয়ন এর সাথে জড়িত তাদের আগে বাদ দেয়া হচ্ছে বলে দাবি করেন তিনি।যাদের চাকরির মেয়াদ ১ বছরের বেশি তাদের যেন বেতন বাড়ানো না হয়, সে জন্যও অনেকে ছাটাই এর শিকার হচ্ছেন।

নিয়ম কানুন না মেনে অবৈধভাবে শ্রমিকদের অব্যাহতি পত্রে সাক্ষর করতে বাধ্য করা হচ্ছে দাবি করে তিনি বলেন, মন্ত্রণালয়কে বারবার চিঠি দেয়া হলেও এসবের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না।

এদিকে করোনা পরিস্থিতিতে পোশাক কারখানার কাজও কমেছে ৫৫ শতাংশ। এমন অবস্থায় জুন থেকেই শ্রমিকদের ছাঁটাই করা হবে বলে জানিয়েছেন বিজিএমইএ সভাপতি ড. রুবানা হক।

বৃহস্পতিবার (০৪ জুন) শ্রমিকদের করোনাভাইরাস পরীক্ষার জন্য দেশের প্রথম স্টেট অব দ্য আর্ট কভিড-১৯ ল্যাব উদ্বোধন উপলক্ষে ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান তিনি। বিজিএমইএ সভাপতি রুবানা হক এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, এই পর্যন্ত ২৬৪ জন পোশাক শ্রমিক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এসব শ্রমিকদের সব ধরনের চিকিৎসার খরচ বহন করছেন উদ্যোক্তারা।

বিজিএমইএর সভাপতি ড. রুবানা হক আরো বলেন, জুন থেকে শ্রমিকদের ছাঁটাই করা হবে। এটি অনাকাঙ্ক্ষিত বাস্তবতা। কিন্তু করার কিছু নেই। তবে এ ছাঁটাই প্রক্রিয়ায় শ্রমিকদের জন্য কী করা হবে; এ বিষয়ে সরকারের সঙ্গে কথা বলছি, কিভাবে এ সঙ্কট মোকাবেলা করা যায়। তিনি বলেন, এ অবস্থা হঠাৎ করে বদলেও যেতে পারে। তখন ছাঁটাই হওয়া শ্রমিকরাই কাজে যোগ দেয়ার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পাবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button