নরসিংদী সদরনরসিংদীর খবর

একজন মানুষও না খেয়ে থাকবেনা, বাড়িতে খাবার পৌঁছে দিবে পুলিশ – নরসিংদী পুলিশ সুপার

নরসিংদী চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ড্রাস্ট্রি এর উদ্যোগে শ্রমিক পারিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন নরসিংদী জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার।

বাণী রিপোর্ট: একজন মানুষও না খেয়ে থাকবেনা। দেশে পর্যাপ্ত খাবারের মজুদ আছে। কেউ যদি না খেয়ে থাকে, তাহলে নিজে সহযোগিতা করতে না পারলে নরসিংদী জেলা পুলিশকে জানালে পুলিশ গিয়ে তার বাড়ীতে খাবার পৌছে দিবে। বুধবার (৮ এপ্রিল) নরসিংদী চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ড্রাস্ট্রি এর উদ্যোগে ২ হাজার শ্রমিক পারিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণকালে নরসিংদী পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ারদার বিপিএম (বার) পিপিএম এসব কথা বলেন।

পারফিউম ফ্যাক্টরি

তিনি আরো বলেন, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সকলকে নিজ নিজ বাড়িতে অবস্থান করতে হবে। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে বিশেষ প্রয়োজনে চলাফেরা করতে হবে। অযথা রাস্তায় ঘুরাফেরা ও জমায়েত হওয়া যাবে না। এতে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি বেড়ে যাবে। জেলাব্যাপি সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখাসহ মানুষকে ঘরমূখী করতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

পরে নরসিংদী সদরের চৌয়ালা, শালিধা ও মাধবদী এসপি ইনস্টিটিউশনে জেলা পুলিশের সহযোগিতায় সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ২ হাজার শ্রমিক পারিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন নরসিংদী জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার। শ্রমিকদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী প্রদানের এ উদ্যোগ গ্রহণ করায় নরসিংদী চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ড্যাস্ট্রিজকে সাধুবাদ জানান নরসিংদী পুলিশ সুপার। এ সময় তিনি সমাজের বিত্তশালীসহ সকলে মিলে সমন্বিতভাবে কর্মহীন, অসহায় ও দরিদ্রদের মাঝে নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী প্রদানের আহবান জানান।

হাতি মার্কা সাবান হাতি মার্কা সাবান

খাদ্য সামগ্রী বিতরণকালে উপস্থিত ছিলেন নরসিংদী চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ড্যাস্ট্রিজ’র প্রেসিডেন্ট আলী হোসেন শিশিরসহ চেম্বার অব কমার্স এর নেতৃবৃন্দ।

উল্লেখ্য, করোনা পরিস্থিতির শুরুতেই জেলা প্রশাসনের পাশাপাশি নরসিংদী জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে প্রতিটি থানা এলাকায় জনসচেতনতামূলক ব্যাপক মাইকিং ও লিফলেট বিতরণ করা হয়। সকল শ্রেণী-পেশার মানুষের মাঝে মাস্ক এবং জেলা পুলিশের তৈরীকৃত স্যানিটাইজার প্রদান করা হয়েছে। রাতের আঁধারে জেলা ও উপজেলা শহরের বিভিন্ন অলিতে-গলিতে ঘুরে ঘুরে ছিন্নমূল, অসহায় এবং ভিক্ষুকদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন পুলিশ সদস্যগণ। নিজস্ব অর্থায়নে জেলাব্যাপী প্রায় ৫ হাজারেরও অধিক অসহায়, হতদরিদ্র, কর্মহীন মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়। করোনা পরিস্থিতিতে জেলার হোম-কোয়ারেন্টিনে থাকা পরিবারগুলোর মাঝে খাদ্য সামগ্রীসহ নানান ফলমূল বিতরণ করা হয়েছে। প্রবাস ফেরতদের বাড়িতে স্টিকার লাগানোসহ হোম-কোয়ারেন্টিনে থাকার বিষয়টি নিশ্চিত করতে তাদের নিয়মিত খোঁজ-খবর নিতে দেখা গেছে। ডাক্তারদের সুরক্ষায় ও বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের মাঝে প্রদান করা হয় পিপিই ও স্যানিটাইজার। নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য-মূল্যের উর্দ্ধগতি নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে জেলা পুলিশ। এছাড়া করোনা মোকাবেলায় মানুষকে ঘরমূখী করতে জেলাব্যাপী সাঁড়াশি অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে নরসিংদী জেলা পুলিশ। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে বিশেষ প্রয়োজনে চলাফেরা করার জন্য দিন-রাত নিরলসভাবে কাজ করছে পুলিশ সদস্যরা। এতে জেলার সকল জনপদের মানুষ ঘরমূখী হওয়াসহ তাদের মাঝে সৃষ্টি হয়েছে করোনা বিষয়ে সচেতনতা।

2 Comments

  1. স্যার রায়পুরা ডৌকারচর ইউনিয়ন এর কাসিম নগর গ্রামে অনেক গরিব মানুষ যাদের যাদের অন্য যোগাতে অনেক সমস্যাহ হচ্ছে। তাদের যদি একটু দেখতেন স্যার তাহলে খুবই ভাল হত ধন্যবাদ।

    1. স্ব-স্ব থানা অথবা উপজেলা নির্বাহী কার্যালয়ে যোগাযোগ করুন।
      ইউএনও রায়পুরা-০১৯৭২-৬৮৭০১০
      যদি উনারা দিতে রাজি না হয় তাহলে আমাদের জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button