নরসিংদী সদরনরসিংদীর খবর

সাংবাদিক ও মুক্তিযোদ্ধা প্রীতি রঞ্জন সাহা’র উপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদ ও সন্ত্রাসীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে সাংবাদিকদের কলম বিরতি ।

শেয়ার করুনঃ

The Daily Narsingdir Bani
নিজস্ব সংবাদদাতা : প্রবীন সাংবাদিক ও মুক্তিযোদ্ধা প্রীতি রঞ্জন সাহা’র উপর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদ ও সন্ত্রাসীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে সাংবাদিকরা ১ ঘন্টা কলম বিরতি কর্মসূচী পালন করেছে। ২২ ডিসেম্বর ররিবার সাংবাদিকরা নরসিংদী প্রেসক্লাবে উপস্থিত হয়ে সকাল ১১টা থেকে ১২ পর্যন্ত কলম বিরতি কর্মসূচীর মধ্যদিয়ে সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদ জানায়। প্রেসক্লাবের সভাপতি মাখন দাস এর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মাজহারুল পারভেজ এর সঞ্চালনায় কর্মসূচী পালন কালে বক্তব্য রাখেন নরসিংদীতে কর্মরত বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকগণ। সভায় ২৩ ডিসেম্বর সোমবার একই দাবীতে ক্লাবের সামনে মানব বন্ধন কর্মসূচী পালনের সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়। দাবী আদায় না হওয়া পর্যন্ত সাংবাদিকরা একের পর এক কর্মসূচী পালন করবে বলে অভিমত ব্যক্ত করেন।

উল্লেখ্য, নরসিংদীতে প্রবীণ সাংবাদিক ও মুক্তিযোদ্ধা প্রীতি রঞ্জন সাহাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে গুরতর আহত করেছে দুর্বৃত্তরা। শুক্রবার রাত দেড়টার দিকে ঢাকা থেকে নিজবাড়ী রায়পুরা উপজেলার রহিমাবাদে ফেরার পথে এ ঘটনা ঘটে। তিনি একজন মুক্তিযোদ্ধা ও নরসিংদী প্রেসক্লাবের নবনির্বাচিত কমিটির দপ্তর সম্পাদক। তার ছোট ছেলে প্রীতম সাহা জানান, বাবা জরুরি কাজে ঢাকা গিয়েছিলেন ফিরতে অনেক রাত হয়ে যায়। তিনি নরসিংদী শহরের আরশিনগর থেকে সিএনজি করে বাড়িতে ফিরছিলেন সিএনজিটি রায়পুরার হাসনাবাদ ইউনিয়নের রহিমাবাদ পৌছালে সেখান থেকে অজ্ঞাতনামা দুইজন যুবক উঠে। তারা সিএনজিতে উঠেই আমার বাবা প্রীতি রঞ্জন সাহাকে রড দিয়ে পিটাতে থাকে। তিনি ছিনতাইকারী ভেবে তারকাছে থাকা টাকা -পয়সা মোবাইল তাদেরকে নিয়ে যেতে বলে। একপর্যায়ে দুর্বৃত্তরা চাপাতি দিয়ে মাথার পিছন দিকে কোপ দিয়ে বাবাকে রাস্তার পাশের গর্তের মধ্যে ফেলে দিয়ে তারা সিএনজি নিয়ে চলে যায়। এসময় তার চিৎকার শুনে এক পথচারী তার পরিবার এর কাছে ফোন দিলে তারা তাকে প্রথমে নরসিংদী সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। তার শারিরীক অবস্থার অবনতি হলে তাকে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে নিয়ে যায়।
এ হামলার তীব্র নিন্দা ও দুষ্কৃতকারীদের গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়েছে নরসিংদী প্রেস ক্লাব, নরসিংদী সংবাদপত্র পরিষদ, বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button